Writer Subham Mukherjee

পুরুষের চোখে মাসিক(পিরিয়ড)ঃশুভম মুখার্জী

শিরোনামটা পড়ে অনেকেরই ভ্রু কুঁচকে গেছে জানি। এসব অবান্তর গোপনীয় একটা বিষয়কে কাটাছেঁড়া না করলেই নয় নাকি! কিন্তু আসল কথা হলো এই বিষয়টা সম্পর্কে আলোচনা না করলে হয়ত পিরিয়ড এর ধারণা টা ঝাপসা থেকে যাবে। মেয়েদের পিরিয়ড, রক্তক্ষরণ,পেটে অসম্ভব ব্যথার অনুভূতি,মুড সুয়িং এর ব্যাপারগুলোর কারণ কি আমাদের পুরুষদের বেশিরভাগই জানে না। আজ থেকে ১০ বছর আগেও এই ব্যাপারে কোনো স্পষ্ট ধারণা ছিলোই না। টিভি বা রেডিওতে যখন বিজ্ঞাপন দিতো স্যানিটারি ব্যবহার এর জন্যে তখন খুব লজ্জা বোধ হত। এ আবার কি! এটাও কি দেখানোর জিনিস নাকি। এগুলো ত গোপনীয় ব্যাপার। আমি ক্লাস সেভেন কি এইটে বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডায় এই পিরিয়ড শব্দটা প্রথম জানতে পারি। এটা কি জানতে চাইলে বন্ধুরা হাসাহাসি করেছিলো। তাদের কাছেও বিষয়টা স্পষ্ট ছিলো না। তারপর লাইব্রেরী,বিভিন্ন বই মারফৎ জানতে পারি বিষয়টা কি। বান্ধবী কিংবা কোনো মেয়ে এই বিষয়টা নিয়েও খোলাখুলি আলোচনা করে না। মাসের এই কটা দিন যেন কোনো গুহ্য ব্যাপার ঘটেছে। ফলে শরীর সম্পর্কে কিংবা সেই শরীরের বদলের বিষয়ে বিজ্ঞান সম্পর্কিত কোনো ধ্যান ধারণা থাকে না। পুরুষদের শব্দটা জানা থাকলেও বিষয়টার গভীরতা আজও ধরাছোঁয়ার বাইরে। এখনো অনেক মেয়েকে বাড়ির অন্দরমহলে পিরিয়ড কেন হয় তার পরিবর্তে এই পিরিয়ডের ফলে যৌবনে পা দিলি,মা হতে পারার সংকেত এসব শেখানো হয়। তাহলে যাদের শরীর ঘিরে এত কিছু তাদেরকেই যদি ধোঁয়াশাতে রাখা হয় পুরুষদের অবস্থান সেই বিষয় কি হবে তা বোঝাই যায়। তবুও এখন নেট এর সুবিধা আর ছেলে মেয়েদের কাছাকাছি বন্ধুত্ব স্থাপনের ফলে পিরিয়ড রিলেটেড ব্যাপারটা কে ছেলেরাও বুঝতে শিখেছে। এটা কোনো লজ্জার জিনিস নয়, নারী দেহের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। দোকানে প্যাড কিনতে যাওয়া মেয়েকে কাগজে রিভলবার লুকিয়ে দেওয়ার মত না করে যোগ্য দামে যা কিনতে এসেছে তা দিন,লজ্জা ত্যাগ করে সুস্থ সমাজের দিকে পা বাড়ান। বাড়ির ছেলে মেয়ে প্রত্যেককে শিক্ষিত করে তুলুন বিষয়টি সম্পর্কে। শরীর মানেই যৌনতা নয়, তাকে ঘিরে যে মেডিকেল বিষয় গুলি আছে তাকে জানার চেষ্টা করুন। পিরিয়ড এর সময়ে বান্ধবী, স্ত্রী,বোন,আত্মিয়া সে যেই হোক না কেন তাকে একটু বেশি কেয়ার করুন। যে যন্ত্রণা তারা ভোগ করে এই কয়েক দিন তা সহ্যের ক্ষমতা খুব কম পুরুষেরই থাকে। দায়িত্ব নিন আগামী দিনের সুস্থ রূপরেখা গড়ার। ধন্যবাদ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *