তোমার নাট্যশালায় — সুকান্ত মজুমদার

sahityalok.com

উদ্বেলিত প্রতিস্পর্ধায়

তোমায় দোষারোপ করে,বলবো ভাবি, 
খুব বিদঘুটে, স্বার্থপর অযথা স্বার্থান্বেষী 
এমনকি খুনিও –
ওদের মতনি মিথ্যা বল
আমাকে আমার কাছ থেকে
কেড়ে নিতে চাইছ প্রতিদিন, প্রতিক্ষণ। 
তোমায় দোষারোপ করবো ভাবি –
সন্তর্পণে গড়ছো শাষক – শোষনের 
সম্মোহনী ভেঁপু, আমাকে নিয়ে।  
অন্ধকারে অন্ধ হয়ে
তোমায় খুজি আস্থা খুঁড়ে, কাঁকর মৃত্তিকার
উদ্ভট উর্বরতার মধ্যিখানে। 
স্থলিত প্রত্যাশারা
খেয়াল খুশির অবগুন্ঠনে হাঁসফাঁস, 
সকলের তুমি সকল লাঞ্ছনার
জিঞ্জাসায় মৃদু হাসির উত্তাপ মাখ,  
বারংবার ভুলকরেই আসছি 
ভুলে যেতে বাধ্য কর, উত্তরাধিকারী
তুমিও ওদেরি একজন –
আন্দোলিত অধিকার, দাবী দাওয়া
তোমার বণিক মনের কাছে
মুনাফার মূল্যবান রসদ,
যা চৈতন্যের বিকার স্বরূপ কালময়
নোংরা দল তন্ত্রে ধ্বনিত। 
আবার দোষারোপ করবো ভাবি –
অভুক্তের কান্না, বেকারত্বের নাশকতা
কৃষকের বুকভেজা অশ্রুঘাম
দুস্থ আমি, আমার অসুস্থতার অধিক
অসুস্থ দাতব্য, সেতো –
তোমার বুকে শান্তির হিমেল পরশ। 
তোমার অবাধ বসন্তের বাসন্তী রঙ
অপ্রতুল আস্থাশীল সহজলভ্য জীবনে
কালো কাল রঙের লেপন,
প্রগতি আর উন্নয়নের উজানে তুমি
উচ্ছ্বাস হয়ে ভাটিয়ালি গাওনা,
মানবীর সম্ভ্রম ফুলমাল্যে ভূষিত হোক
সর্বোচ্চ সাধন মত ঘরে বাইরে 
চির বন্দিত হয়ে উঠুক জননী মহত্ত্বে, 
মানুক জনে জনে, তোমার রক্তিম 
সাহচর্যে ও ঘোষিত ইস্তাহারে, 
তাও তুমি নির্লিপ্ত,অদম্য শোষণ রসায়নে। 
দোষারোপ করবো ভাবি
আমৃত্যু তুমি রাজকীয় বানিজ্যের রক্ষাকবচে মোড়া, তোমার জন্য
আরেক ও অন্য মাত্রার সংবিধান। 
যত দোষ, অন্যায়, অপরাধ সবি শাষিতের
তুমি রাজা হয়ে ওঠো সেবকের আড়ালে
তোমার তৃষিত জীবন পূর্ণ করতে
বিবেক ও মনুষ্যত্বের বাগিচায়
হয়ে ওঠো সুশোভিত আগাছা।
তোমায় দোষারোপ করবো ভাবি –
কেমন যেন লাগে, গা গোলায়,
তোমায় ভাবতে গিয়ে নিজেকেই দেখি
লজ্জা পাচ্ছি, তোমার শরীর বেয়ে
আত্মজীবনীতে যে দুর্গন্ধ বাসা বেঁধেছে
তা ‘ন্যাতা ‘ হয়ে মুখরিত হচ্ছে
আবারও উদগ্রীব হচ্ছি করতালি নিয়ে
নাট্যশালার নট হয়ে, আমার চরিত্র
পরিচয় লেখা হচ্ছে, তোমার দল ভিত্তিক –
এবার একটু হাসবে নিশ্চয়। 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *