Prokash Chandra Roy

 

অসম্পূর্ণ অনুচ্ছেদ (অণুগল্প)

প্রকাশ চন্দ্র রায়

২৩,০৮,২০২১

অনেক সাধ্য সাধনা করেও মন পাচ্ছে না সে অতনু দাস অন্তু’র। বারবার কাছে ঘেঁষা’র চেষ্টা করে করে ব্যর্থ’ই হচ্ছে কেবল। মেসেজের প্রত্যুত্তরে শুধু হু-হা-না,জবাব দিয়েই সমাপ্তি টানে অতনু। ফোন করলে বলে ব্যস্ত আছি,পরে কথা হবে। মামা’র গ্রামের সুদর্শন ও সচ্চরিত্রবান ছেলে অতনুকে ভীষণ ভালবাসে অমৃতা দাস। একই কলেজে থার্ড ইয়ারে পড়ে অতনু আর ফার্স্ট ইয়ারের ছাত্রী অমৃতা। মামা’র বাড়ীতে যাতায়াতের সুবাদে ও একই কলেজে পড়ার কারনে অতনু’র ঘনিষ্ঠ সান্নিধ্য একান্তভাবেই কামনা করে সে কিন্তু কিছুদিন যাবত কেন যেন তাকে এড়িয়ে যাচ্ছে অতনু দাস! এমন তো নয় যে দেখতে শুনতে খুব খারাপ অমৃতা দাস-গোটা কলেজের মধ্যে সেরা সুন্দরী সে। অন্যকোন মেয়ের সাথে বিশেষ সুসম্পর্কও নেই অতনু দাসের,একদম চিরুনি তল্লাসি চালিয়ে নিশ্চিত হয়েছে সে,কেবল জানছে না প্রায় মাস ছয়েক থেকে কেন কলেজে আসছে না তার পছন্দের পুরুষ অতনু দাস অন্তু! আজ বিকেলে চরম সিদ্ধান্ত গ্রহন করে চললো সে মামাবাড়ী অভিমুখে,উদ্দেশ্য একটাই-মামাতো বোনকে সঙ্গে নিয়ে অতনুর সাথে শেষ বোঝাপড়া করবে সে।
পাকা রাস্তা থেকে মাত্র বিশ মিনিটের পায়েচলা কাঁচারাস্তা,এই সময়েই সূর্যাস্ত হলো। কেয়ার করলো না অমৃতা,হেঁটেই চললো নদীর পাড় ধরে। সামনেই ছোট একটা শ্মশান,নিশ্চয়ই কোন শবদাহ করা চলছে,আসন্ন সন্ধ্যার আঁধার ছাপিয়ে দাউ দাউ করে জ্বলতে থাকা চিতা’র আলোয় আলোকিত হয়েছে শ্মশানঘাট। নিকটে আসতেই মামা-মামী ও ঈশিতাকে দেখে বুঝতে পারলো অত্যন্ত নিকট সম্পর্কীয় কেউ একজন মারা গেছে বিধায় ওরাও উপস্থিত হয়েছে এখানে। ওকে দেখামাত্রই
ছুটে এসে জড়িয়ে ধরলো মামাতো বোন ঈশিতা।
-কাকে দাহ করা হচ্ছে রে?
প্রশ্ন করাই আগেই বলতে শুরু করলো ঈশিতা,
-ও পাড়ার অতনুদাদা মারা গেছে আজ দুপুরে।
কথাটা কানে যেতেই গোটা পৃথিবী দুলতে লাগলে অমৃতার!
-কী হয়েছিল?
একথাও বলতে বলতে পারলো না! নির্বাক নিশ্চলভাবে কেবল তাকিয়ে থাকলো দাউ দাউ করে জ্বলতে থাকা অনল প্রবাহের ভিতরে তার প্রিয় পুরুষ অতনু দাসের ভস্মপ্রায় শবদেহের দিকে।
কাঁদো কাঁদো স্বরে ঈশিতা বললো,
-অনেকদিন থেকে লিভার ক্যান্সারে ভুগছিল
গত ছয়মাস থেকে বাড়াবাড়ি হওয়ায় অনেক চিকিৎসা-পাতিতেও আর শেষরক্ষা হলো না!
ঈশিতার শেষের কথাগুলো অমৃতার কানে গেল কি না,
তা আর বোঝা গেল না! তার মাঝেই থরথর কাঁপতে কাঁপতে রাস্তার মাঝে নেতিয়ে পড়লো অমৃতার দেহলতা।★
রচনাকাল-২৩,০৮,২০২১,সোমবার।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *