পত্রিকা রিভিউ


 আশ্বিনকে কেন্দ্র করেই পত্রপত্রিকায় বাঙালির আত্মজাগরণ 

🌿

তৈমুর খান 

🍁

শারদীয় উৎসবে শুধু মাতৃবন্দনা, নতুন জামাকাপড়, মিষ্টিমুখ ও শুভেচ্ছা-প্রণাম বিনিময়েই সর্বসিদ্ধি লাভ করে না, তার সঙ্গে যদি বাঙালি সংস্কৃতির মনন-সৃজনের পরিচয় না থাকে, অর্থাৎ পত্রপত্রিকার প্রকাশ না থাকে তাহলে তা অসম্পূর্ণই থেকে যায়। কিন্তু আশ্চর্য, এই আশ্বিনকে কেন্দ্র করেই বাঙালির আত্মজাগরণ টের পাওয়া যায়। অজস্র তার সৃষ্টিসম্ভার থেকে কয়েকটি লিটিল ম্যাগাজিন আমাদের আজকের নিবেদন।

আশিসকুমার ভূঁইয়া

১, নতুনমুখ

🌿

 সাগরদ্বীপ থেকে প্রকাশিত ছোটদের একমাত্র সচিত্র পত্রিকা ‘নতুনমুখ’(শারদীয় সংখ্যা ১৪২৯) খুব যত্ন নিয়ে  ১১বছর ধরে প্রকাশিত হয়ে আসছে। নতুন লেখকদের সঙ্গে নামকরা লেখকরাও এই পত্রিকায় লিখেছেন। সঙ্গে আছে লেখকদের পরিচিতিও। মন ভরে যায় প্রতিটি পৃষ্ঠায়। কাজী মুরশিদুল লিখেছেন: “কুমোরটুলির দুর্গা যাবে কদিন পরেই ইতালি/ জেট বিমানে পাতিয়ে নেবে সবার সঙ্গে মিতালি।” হাননান আহসান লিখেছেন: “বন্ধুরা সব ছড়া লেখে/ কত রকম ছন্দ মিলে/ মেঘপাখি আর তপ্ত রোদের/ রংবাহারি আকাশ নীলে।” এঁদের পাশাপাশি ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী সাহেরী বিশ্বাস লেখেন: “রঙবাহারি আলোকমালা/ রাতকে করে দিন/ তবু যেন মায়ের পুজো/ লাগে বর্ণহীন।” পাঠ করতে করতে তন্ময় হয়ে যাই। অজিত বাইরী, মধুসূদন ঘাটী, মঞ্জুভাষ মিত্র, উৎপলকুমার ধারা, তপন বন্দ্যোপাধ্যায়, সমাজ বসু, সুজিত দেবনাথ, মুকুল মাইতি এঁদেরই পাশাপাশি বহু নতুন মুখের ভিড়। গদ্য, গল্প, ইংরেজি রচনা, ছড়া, কাকদ্বীপ মহাকুমার মাধ্যমিকে প্রথম হওয়া সানিয়া রহমানের সাক্ষাৎকার এবং আরো বহুমুখী রচনায় পত্রিকাটি অসাধারণ হয়ে উঠেছে। এই মুহূর্তে ছোট-বড় সকলেরই অবশ্য পাঠ্য পত্রিকা। যোগাযোগ: আশিসকুমার ভূঁইয়া, শীলপাড়া, মুড়িগঙ্গা, সাগরদ্বীপ, দক্ষিণ ২৪ পরগনা-৭৪৩৩৭৩, চলভাষ: ৯৫৬৪০৩০৫১৫, মূল্য-৩০ টাকা।

সুব্রত দেবনাথ

ডাহুক

🌿

শক্ত মলাটে শারদীয়া সংখ্যা ‘ডাহুক’(১৪২৯) বেশ আকর্ষণীয় একটি সংখ্যা। কোচবিহারের তুফানগঞ্জ থেকে এরকম একটা পত্রিকা বেশ চ্যালেঞ্জ বলা চলে। সম্পাদক যে এসব ভালোবাসার টানেই করেছেন তা জানিয়েও দিয়েছেন। তথ্যধর্মী  গদ্য লিখেছেন সিদ্ধার্থ সিংহ ‘কোন লেখক কীসে লিখতেন’। অনেকেরই কৌতূহল নিবারণ করবে। মহাভারতের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটে ভারতীয় সভ্যতা নিয়ে লিখেছেন সৌম্য ঘোষ। পৌরাণিক কাহিনিতে দেবী দুর্গার কিংবদন্তি ও পূজা পার্বণ নিয়ে লিখেছেন কাশীনাথ হালদার। রাস উৎসবের আধ্যাত্মিক গুরুত্ব কতখানি সে বিষয়ে ভাবনার উদ্রেক করে বিভাস গুহের প্রবন্ধটি। বিভিন্ন আঞ্চলিক ইতিহাস নিয়ে কুমার মৃদুল নারায়ণ, বিকাশচন্দ্র মণ্ডল, জগদীশ মণ্ডল গুরুত্বপূর্ণ প্রবন্ধ লিখেছেন।  গল্প লিখেছেন গৌরব সরকার ও পিন্টু সর্দার। ছোটগল্পে আছেন স্বপ্না মজুমদার, রাহুল দাস ও মিঠুন মুখার্জি। উল্লেখযোগ্য অণুগল্পের লেখকেরা হলেন: অম্বরীশ ঘোষ, তরুণ মান্না, কৃপাণ মৈত্র, পীযূষকান্তি সরকার এবং গোবিন্দ নাথ। প্রায় শতাধিক কবিতা এই সংখ্যায় আছে। বেশ কিছু ভালো কবিতা মনে রাখার মতো। যোগাযোগ: সম্পাদক সুব্রত দেবনাথ, তুফানগঞ্জ, কোচবিহার-৭৩৬১৫৯,চলভাষ: ৯৮৩২১৩২৩৯১,মূল্য ২৮০ টাকা।

৩ 

বিপ্লব চক্রবর্তী

 ইচ্ছেনদী

🌿

 প্রতিটি সংখ্যাই বিভিন্ন পরীক্ষা মূলক বিষয় নিয়ে প্রকাশিত হয় ‘ইচ্ছেনদী’। উৎসব সংখ্যা-29-ও সে দিক দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি সংখ্যা। এই সংখ্যায় গল্প নিয়ে নানা পরীক্ষামূলক লেখা আছে। সম্পাদকীয়তে ‘সীমান্ত’ পত্রিকার সম্পাদক দীপেন রায়ের মৃত্যুর কথা উল্লেখ করা হয়েছে। নিভৃতচারী মানুষটি সাহিত্যজগতে কতটা আন্তরিক ও মেধাবী ছিলেন তার স্মৃতিচারণা করা হয়েছে। অনুবাদক চিন্ময় গুহ এবং আঁদ্রে জিদ এর ফরাসি উপন্যাস নিয়ে লিখেছেন পারমিতা ভৌমিক। মালভূমির গান ‘মলহরিয়া’ নিয়ে লিখেছেন রবীন পাণ্ডে। ভিন্নধারার ছোটগল্প লিখেছেন: সাধন দাস, বিতস্তা ঘোষাল, সুব্রত বসু, ঋতুপর্ণ বিশ্বাস, ওমর ফারুক, তৃষ্ণা বসাক, বিপ্লব গঙ্গোপাধ্যায়, সৌমিত্র চৌধুরী, প্রগতি মাইতি, গৌতম দে, অনন্যা বন্দ্যোপাধ্যায়, রক্তিম ইসলাম, শান্তনু ভট্টাচার্য, বিশ্বরূপ মুখোপাধ্যায়, বিমান সাহা, উস্রি দে, গোলক ঋষি, আইজাক সাহা, প্রদীপ গুপ্ত, শ্যামলী রক্ষিত, কৌশিক ঘোষ বিপ্লব চক্রবর্তী। বেশকিছু নির্বাচিত কবির কবিতা এবং পুস্তক আলোচনা এই পত্রিকার উল্লেখযোগ্য বিষয়।

 যোগাযোগ: বিপ্লব চক্রবর্তী,৭৩৩/৩ কাঁকপুল, কল্যাণগড়, অশোকনগর, উত্তর ২৪ পরগনা-৭৪৩২৭২,চলভাষ: ৯৭৩২৭৪৬৩৮০,মূল্য ১২৫ টাকা।

অনিরুদ্ধ সুব্রত

উত্তর পক্ষ

🌿

‘উত্তর পক্ষ’(১৪২৯) শারদীয়া সংখ্যাটি বিশেষ কবিতা সংখ্যা হিসেবেই প্রকাশিত হয়েছে। প্রায় একশোর বেশি কবির কবিতা আছে। বর্তমানের তরুণ প্রজন্মের কবিদের পাশাপাশি অনেক নামকরা কবিরাও ঠাঁই পেয়েছেন। চিরপ্রশান্ত বাগচি, অচিন মিত্র, দেবাশিস তেওয়ারি, সোহরাব পাশা, অতনু ভট্টাচার্য, রবীন বসু, তুষারকান্তি রায়, সুজিত দাস, অজিতেশ নাগ, তাপস রায় এদেরই পাশাপাশি রূপক চট্টোপাধ্যায়, চন্দন রায়, পঙ্কজ মণ্ডল, আবদুল বাসার খান, শান্তনু ঘোষ, সুকুমার হালদার, নরেশ মল্লিক, দেবদাস রজক, পলাশ দাস, সোমনাথ সাহা, তনিমা হাজরা, দয়াময় পোদ্দার, পিঙ্কি ঘোষ, বাপ্পাদিত্য রায়বিশ্বাস প্রমুখ। বহুবিচিত্র কবিতা এবং সাম্প্রতিককালের কবিতার ধারা এই সংখ্যাটিতে সহজেই বোঝা যায়। যোগাযোগ: অনিরুদ্ধ সুব্রত, সুতরাং, বাণীপুর, উত্তর ২৪ পরগনা-৭৪৩২৩৩,চলভাষ: ৮৪৩৬৩৮৭৩৯১,মূল্য ১০০ টাকা।

৫ 

অমিতাভ চক্রবর্তী

সাহিত্য সমাজ

🌿

শারদীয়া সংখ্যা ‘সাহিত্য সমাজ’(১৪২৯) ২৪ বছর পূর্ণ করেছে। কবিতা, গল্প, সমালোচনা সাহিত্য এই সংখ্যাটিকেও আলাদা মাত্রায় পৌঁছে দিয়েছে।  এই সংখ্যায় একটি মূল্যবান প্রবন্ধ ভারতের আদিবাসী সমাজে জাতিভেদ নিয়ে লিখেছেন বিমলকুমার শীট। গল্প লিখেছেন: সুমন মহান্তি, অঞ্জন শিকদার। অনুবাদ কবিতায় প্রভাত মিশ্র। ১৩ জন কবির তিনটি করে কবিতা আছে। কবিরা হলেন: বিজন চক্রবর্তী, রাখহরি পাল, কামরুজ্জামান, স্নেহাশিস পাল, গৌতম মাহাতো, অয়নকুমার সরকার, অমিতাভ চক্রবর্তী, স্বর্ণেন্দু সেনগুপ্ত, কৌশিক বর্মণ, দেবব্রত চক্রবর্তী, নিভা ঘোষ, মহুয়া ব্যানার্জি প্রমুখ। সব কবিতাগুলিই ভালো লাগে।  বেশকিছু গ্রন্থের সমালোচনা এই সংখ্যার মূল্যবান সংযোজন। যোগাযোগ: অমিতাভ চক্রবর্তী, সুভাষপল্লী, খড়্গপুর-১, পশ্চিম মেদিনীপুর। মূল্য:৭০ টাকা। 

৬,

অম্বরীশ ঘোষ

 এক পশলা বৃষ্টি

🌿

২০০০ সাল থেকে প্রকাশিত হয়ে আসছে ‘এক পশলা বৃষ্টি’। বর্তমান সংখ্যাটি সুন্দর প্রচ্ছদে রীতিমতো একটি সংকলন। মূল্যবান কয়েকটি প্রবন্ধ বাণিজ্যিক পত্রিকাতেও পাওয়া যাবে না। যেমন স্বপনকুমার মণ্ডলের লেখা আখতারুজ্জামান ইলিয়াসের ‘চিলেকোঠার সেপাই’-এর নিম্নবর্গের মানুষ। উত্তরবঙ্গের প্রান্তজ মানুষের স্বর অভিজিৎ সেনের উপন্যাসে রয়েছে তা নিয়ে লিখেছেন রণজিৎকুমার মিত্র।  কথাশিল্পী নিম্নবর্গ ও সামাজিক বাস্তবতার তথ্য তুলে ধরেছেন সমর দেব। লালশুকরার গানে চা শ্রমিকদের কথা উঠে এসেছে প্রমোদ নাথের লেখায়। তেমনি ফিকির চাঁদের কাঙাল হরিনাথকে নিয়ে লিখেছেন গৌতম গুহরায়। বাংলা উপন্যাসে পিছিয়ে পড়া মানুষদের খবরাখবর দিয়েছেন শৌভিক রায়। তেমনি মণিশংকরের কালুডোম, বাঘারু বৃত্তান্ত ইত্যাদি বিষয়গুলোও একই সম্পর্কযুক্ত। উল্লেখযোগ্য মুক্তগদ্যের শক্তিশালী কলমে আছেন দেবজ্যোতি রায়, মলয় রায়চৌধুরী, শুভময় সরকার, মনোনীতা চক্রবর্তী, শ্যামলী সেনগুপ্ত প্রমুখ। গুচ্ছকবিতা নির্বাচন অসাধারণ। কবিরা হলেন: বিজয় দে, সন্তোষ সিংহ, রুদ্র কিংশুক, উত্তমকুমার মোদক, পীযূষ সরকার। বিভিন্ন ধরনের কবিতায় কবিদের স্ব স্ব বৈশিষ্ট্য বিদ্যমান। দীর্ঘ কবিতা লিখেছেন: মধুমিতা চক্রবর্তী, অমিতকুমার দে, সুবীর সরকার, মনোজ পাইন। অনুবাদ কবিতায় সত্যজিৎ চৌধুরী, শুভঙ্কর পাল, শৌভিক দে সরকার। একগুচ্ছ ছোটগল্প, অণুগল্প, কবিতা, সাক্ষাৎকার, আড্ডা, পত্রিকা পর্যালোচনা, বই আলোচনা প্রভৃতি বহু বিষয় এই সংখ্যায় রয়েছে। এত আয়োজনেও পত্রিকার মান অক্ষুণ্ন আছে। লিটিল ম্যাগাজিন হলেও এই সময়ের খুব মূল্যবান একটি পত্রিকা। যোগাযোগ: অম্বরীশ ঘোষ, দেবীনগর, আলিপুরদুয়ার-৭৩৬১২১, চলভাষ : ৯৮৩২৪২০৭০৬, মূল্য-১৫০ টাকা।

সরজিৎ দাস

জাগরণ

🌿

২৩ বছর ধরে প্রকাশিত হয়ে আসা ‘জাগরণ’(১৪২৯) এর বর্তমান সংখ্যাটি শারদীয়া সংখ্যা। গোবর্ধন দাস এর লেখা ‘বৈষ্ণব কবিতা’ বেশ নতুন করে আকৃষ্ট করল। পুরনো পয়ার-ত্রিপদীতে মন ভিজে গেল। নব বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছোটগল্প বেশ মননশীল। এছাড়া বিশ্বনাথ চট্টোপাধ্যায়, পূর্বা দাস, অরিন্দম গোস্বামী, অরুণ দে, কাকলি দেবনাথ, সরজিৎ দাস প্রমুখ গল্পকারের গল্পে রোমান্টিক মনের ছোঁয়া পাওয়া যায়। কয়েকটি অণুগল্প লিখেছেন: মানস সরকার, আশিষকুমার নিয়োগী, অনিন্দিতা মণ্ডল, অর্পিতা রায়চৌধুরী, তাপস মিত্র প্রমুখ। ভিন্নধারার তিনটি মুক্তগদ্য লিখেছেন অশোক মুখোপাধ্যায়, সুমন ভট্টাচার্য ও শান্তনু চট্টোপাধ্যায়। একগুচ্ছ কবিতায় বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়, মিতুল দত্ত, স্মরণজিৎ চক্রবর্তী, শুভাশিস ভাদুড়ী, শুভঙ্কর দাশ, পিয়াল ভট্টাচার্য, ধ্রুব পোদ্দার, সুবীর মজুমদার উল্লেখযোগ্য। ঝরঝরে প্রতিটি লেখার পরিবেশনায় সুরুচির পরিচয় আছে। যোগাযোগ: সরজিৎ দাস, বারাসত দশভূজাতলা, চন্দননগর, হুগলি-৭১২১৩৬, চলভাষ:৭৬৮৬০৭৭০৩১,মূল্য-১২৫ টাকা।

অণুরণন

🌿

চতুর্দশ বর্ষের পত্রিকা ‘অণুরণন’(১৪২৯) এর এই সংখ্যাটি শারদীয়া সংখ্যা। মূলত অণুগল্পের পত্রিকা এটি। অণুগল্প নিয়ে আলাদা করে ভাবনার পত্রিকার সংখ্যা খুবই কম। তাই এই পত্রিকাটির একটি আলাদা মর্যাদা আছে। কবিতার মতোই অণুগল্পও বিভিন্ন সময়ে বাঁক বদল করেছে। শিল্পটির বৈচিত্র্যময়তা এবং রহস্যময়তা পাঠকদেরও নতুন করে ভাবাতে শুরু করেছে। এই পত্রিকাটি তারই প্ল্যাটফর্ম। অণুগল্প নির্বাচনে অবশ্যই সম্পাদকের রুচির প্রশংসা করতেই হয়। কেননা প্রতিটি অণুগল্পই স্ব স্ব ক্ষেত্রে একটা আবেদন নিয়ে উপস্থিত হয়েছে। রঙ্গ-ব্যঙ্গের সঙ্গে বুদ্ধিদীপ্ত আয়রনি যেমন আছে, তেমনি চেতনা প্রবাহের ভাবনাস্রোতও পাঠককে গভীরে টেনে নিয়ে যেতে সক্ষম। তবে অধিকাংশ গল্পেই আছে বাস্তব জীবনের আঁচড়। জীবনের অভিজ্ঞতার কথা। অঞ্জলি বেরার একটি প্রবন্ধ বাদ দিলে প্রায় চল্লিশটি অণুগল্প প্রকাশিত হয়েছে। শুভময় রায়, তপন বন্দ্যোপাধ্যায়, স্বপ্নময় চক্রবর্তী, সিদ্ধার্থ সিংহ, প্রগতি মাইতি, সোমনাথ বেনিয়া, হিল্লোল ভট্টাচার্য, সুকুমার রুজ, বৃন্দাবন দাস অধিকারী, সুনন্দা মাইতি, কেশব মেট্যা, কল্যাণী মজুমদার, বাবলু কাজি, অ্যাঞ্জেলিকা ভট্টাচার্য, চন্দ্রাবলী বন্দ্যোপাধ্যায়, রামকৃষ্ণ সাহু, ক্ষিতীশ সাঁতরা, অনিমেষ চট্টোপাধ্যায় প্রমুখ বহু জনেরই নাম করা যায়।

 সুন্দর প্রচ্ছদটির জন্য অরিত্র বেরাকে ধন্যবাদ। যোগাযোগ: অসিতবরণ বেরা, ও টি রোড, ত্রিকোণ পল্লি, বেলদা, পশ্চিম মেদিনীপুর-৭২১৪২৪, চলভাষ: ৯৪৭৪১৮৮২৬০,  মূল্য-১০ টাকা।

অসিতবরণ বেরা

যদি জানতে

🌿

শারদ সংখ্যা ‘যদি জানতে’(১৪২৯) বেশ ভিন্ন ধরনের একটা পত্রিকা। কাব্যসংকলনের মতোই সাজানো গোছানো। ১৫ বছর বয়সের পত্রিকা হলেও অনেকটাই পূর্ণতা অর্জন করতে পেরেছে। সকল লেখকের কাছেই আপন হবার বাসনাও প্রকাশ করেছে। ছোটদের পাতায় কচিকাঁচারা যেমন লিখেছেন, তেমনি বড়দের মধ্যেও উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিরা হলেন : কৃষ্ণা বসু, গৌতম ভট্টাচার্য, নিলীমা সৎপতি, নিমাই মাইতি, অঞ্জন দাস, তাপসকুমার চক্রবর্তী, শোভা চন্দ, পবিত্রকুমার ভক্তা, সুস্মেলী দত্ত, চিরঞ্জিত ভান্ডারী, উদয়ন চক্রবর্তী, অর্চিতা মাইতি, শুভ্রাশ্রী মাইতি, নিমাই জানা, বিকাশ চন্দ, জয়দেব ওঝা, শুভঙ্কর দাস, জয়দেব মাইতি, মানবকুমার প্রামাণিক, সুব্রত বেরা, উজ্জ্বল পায়রা, এস মহিউদ্দিন, লক্ষীকান্ত মণ্ডল, স্বদেশরঞ্জন মাইতি, সুমিত্রা সাও গিরি, বিকাশ পন্ডিত, কিশোর নাগ, অজন্তা রায় আচার্য, ঋত্বিক ত্রিপাঠী, সমীর কুমির, অনিমেষ মণ্ডল, অশোককুমার লাটুয়া, শংকর সামন্ত, সত্যেন্দ্রনাথ বেরা, অমৃতা খেটো, সুমনা রায়, মেহেবুব গায়েন প্রমুখ আরো অনেকেই। গল্প, অণুগল্প, কবিতা, ছড়া এসবের পাশাপাশি অনুবাদ কবিতাত ও গল্প আকৃষ্ট করে। চন্দন মাইতি এবং রণজিৎ দাস অনুবাদ করেছেন। প্রবন্ধ-নিবন্ধে দেবাশীষ গীর গোস্বামী, ক্ষিতীশ সাঁতরা,ড.প্রবলকান্তি হাজরা, স্বপনকুমার মণ্ডল,ড.মিহিরকুমার প্রধান ও ভোলানাথ পালের নাম উল্লেখযোগ্য। যোগাযোগ: জয়দেব মাইতি, কলাগাছিয়া, খেজুরি, পূর্ব মেদিনীপুর, চলভাষ:৯১৫৩১২৪৪৭৫, মূল্য ১০০ টাকা।

১০

জ্যোতিপ্রকাশ সাহা

নবাবী

🌿

‘নবাবী’(১৪২৯) এর শারদ সংখ্যাটি একটা ভিন্নতর প্রচ্ছদের অসাধারণ পত্রিকা। প্রথমেই চোখ আটকে যাবে জ্যোতিপ্রকাশ সাহার ধারাবাহিক স্মৃতিকথায়। ‘পিছন পানে তাকাই যদি’ নামে পঞ্চম পর্ব এই সংখ্যায় মুদ্রিত হয়েছে। ‘নবাবী’ পত্রিকার বিভিন্ন সংখ্যার লেখক লেখিকা এবং তাঁদের লেখা নিয়ে নানা অভিজ্ঞতার স্মৃতিচারণা আছে। অনেক স্মৃতি বেদনার, আবার অনেক স্মৃতি গৌরবের। সেই সময়ের বিভিন্ন অনুষ্ঠান এবং পত্রপত্রিকার কথা উঠে এসেছে। সাধন চট্টোপাধ্যায় কথাসাহিত্যিক বিমল করের গল্পের ভুবনে আমাদের নিয়ে গেছেন। কত বৈচিত্র্যময় সেই ভুবন তা রীতিমতো গবেষণার ব্যাপার। গৌরকিশোর ঘোষ সম্পর্কে লিখেছেন অরিন্দম গোস্বামী। তাঁর ছোটগল্প কতখানি জীবনবাদী তা বোঝা যায়। অনেকগুলি কবিতার মধ্যেও সুভাষ মজুমদার, সত্যপ্রিয় মুখোপাধ্যায়, দ্বিজেন আচার্য, ছন্দিতা মল্লিক, প্রশান্ত চক্রবর্তী, রাজশ্রী বন্দ্যোপাধ্যায়, অমিত বাগল, অতনু টিকাইৎ, অজিত ভড়, শ্যামলী রক্ষিত, দীপশিখা চক্রবর্তী, ফটিক চৌধুরী প্রমুখের কবিতা বেশি ভালো লাগে। এই পত্রিকার গল্প বিভাগটি বেশি শক্তিশালী। গৌর বৈরাগী, কৃষ্ণেন্দু মুখোপাধ্যায়, নিবেদিতা ঘোষ মার্জিত, গৌতম বিশ্বাস, সরোজ দরবার, সৌমিত্রশংকর দাশগুপ্ত মনে রাখার মতো গল্প লিখেছেন। অল্প কথায় গল্প এবং বই নিয়ে চর্চা বিভাগ দুটিও অসাধারণ। মধুমিতা দাস এর প্রচ্ছদ মন কেড়েছে। যোগাযোগ : জ্যোতিপ্রকাশ সাহা, ৪৩ এস বি রোড, ডাকঘর:ইছাপুর-নবাবগঞ্জ, উত্তর ২৪ পরগণা-৭৪৩১৪৪, চলভাষ:৯৮৩৬২১৬৫৯৯, মূল্য ৮০ টাকা।

১১

মধুমঙ্গল বিশ্বাস

দৌড়

🌿

৩৮ বছর ধরে প্রকাশিত হয়ে আসা বর্তমানে মাসিক ‘দৌড়’(১৪২৯) – এর শারদ সংখ্যাটি একেবারে অভিনব। নীলাকাশ-পাহাড়-হ্রদের প্রচ্ছদে মনটা অনন্তের ছোঁয়া উপলব্ধি করে। মধুমঙ্গল বিশ্বাসের ক্যামেরা যে কথা বলতে পারে তা প্রচ্ছদ দেখেই বোঝা যায়। তৃষ্ণা বসাকের মুক্তগদ্য স্মৃতিকবিতার অজস্র ধারায় আমাদের অভিষিক্ত করে দিয়েছে। যৌবনের দূত কবিতা বিভাগে এক ভিন্নতর বোধের চলন উপলব্ধি করলাম। অরিত্র দ্বিবেদীকে খুঁজবে পাঠক। অয়ন হালদারকেও আবিষ্কার করবে। লাবনী বৈদ্য, সুমন বিশ্বাসের জন্ম হবে বারবার। আরশিনগরে চাণক্য বাড়ৈ, তোফায়েল তফাজ্জলের সৃষ্টিতে নিমগ্ন হই। আমাদের পর্যবেক্ষণ বাড়ে। ‘আমাদের প্রেম, আমাদের আশ্রয়’ কোনো নতুন আলোর সামনে দাঁড় করায়। চেনা পথ বলে আমরা সহজেই চিনতে পারি। কয়েকটি অণুগল্প খুব বাস্তব অভিজ্ঞতার করাত হয়ে উঠেছে। মধুমঙ্গল বিশ্বাসের ‘আম’ ড্রেনে পড়ার পরও যে স্বাদ পাল্টায়নি আমরাও টের পেলাম। সৌগত মুখোপাধ্যায়ের ‘ছন্দ পতনের ইতিহাস’ আমাদেরও যন্ত্রণা ভোগ করায়। এমনই মনে দাগ কাটে অমলশুভ্র ভট্টাচার্য, কুমকুম বৈদ্য, চন্দন ঘোষ, শুক্লা কর, সমরেশ মাইতি ও সুদীপ ঘোষালের গল্প। ‘দৌড়’ যে তরুণ অশ্ব তা বলাই বাহুল্য। যোগাযোগ: মধুমঙ্গল বিশ্বাস, মিলন পল্লি, হৃদয়পুর, কলকাতা-১২৭,

চলভাষ : ৭৫৯৫০৬০৯৭৭,মূল্য ৬০ টাকা।

আলোচক ড. তৈমুর খান
🌿

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *