Dr. Nazrul Islam Khan

বড্ড পাগলামি
~ড. নজরুল ইসলাম খান

আজ খুব মনে পড়ছে-
তুমি আমাকে খুব কাছে পেতে চাইতে। সপ্তাহে সাত দিন মাসে তিরিশ দিন বছরে তিনশ পয়ষট্টি দিনই তুমি আমাকে কাছে পেতে চাইতে।
একদিন অনুভব করলাম- না, আসলে তুমি আমাকে সারাজীবনের জন্যেই কাছে পেতে চাইছ!

সেদিন বুঝতে পারিনি তোমার এ চাওয়া-
সারাজীবন কাছে পেলে এমন কী পাওয়া হবে অথবা না পেলে এমন কী ক্ষতি হবে তোমার!
আমি জানতাম-এসব বিষয়ে তুমি আমার চেয়ে ঢের বেশি আবেগি, আমার চেয়ে অনেক বেশি জ্ঞানী।
ক্ষণে ক্ষণে তুমি আমাকে বোঝাতে চেষ্টা করেছ কিন্তু আমি যে এ বিষয়ে একদমই বেমালুম তা বোধহয় তুমি একটুও টের পাওনি।

তোমার মত একটা মানুষকে আমি হেলাফেলা করছি, তোমার ভালোবাসার গুরুত্ব আমি বুঝতেছি না, তোমার বিদ্যাবুদ্ধির সম্মান আমি দিচ্ছি না-আরও যে কত যে গুণ ছিল তোমার, আমি কিছুই আমলে নিই নি-

এতোকিছুর পরেও তুমি বুঝতে পার নি-
আমি সত্যিকারের একটি বোকা মানুষের রূপ ধারণ করেছি।
সনদ আমাকে মেধাবী প্রমাণ করলেও তোমার চোখে আমি বরাবরই বেহিসেবি বোকা রয়ে গেলাম।

তবে যাই বলো, তোমার মধ্যে যে পাহাড়-পর্বতের মতো উঁচু প্রেম ছিল তা কিন্তু আমি বুঝতাম। সে প্রেম যে আমাকেই বিস্তর বিলিয়ে দিচ্ছ তা নিয়ে সন্দেহের অন্ত ছিল না আমার!
তোমার প্রেমের হাটে অনেকে যাতায়াত করেছে। জীবনে মরণে তোমাকে কাছে পেতে চেয়েছে, তাদেরকে উপেক্ষা কেন করলে তা কিন্তু বলোনি তুমি কোনোদিন আমাকে।
হয়তো আজ বলবে-
আমার জন্য তুমি তাদেরকে উপেক্ষা করেছ, আমার জন্য তাদেরকে আপন করতে পারনি, আমার জন্যেই তাদেরকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করেছ, অবহেলাও করেছ মাঝে মাঝে।
তাহলে আমিও বলব-
তোমার মধ্যে জ্ঞানের শূন্যতা ছিল, যার কারণে আমার মত বোকা মানুষকে চিনতেই পারনি, এমন বোকা প্রাণীকে আসলেই ভালোবাসা যায়?

যায়, আবার যায় না এমনও-হয়তো এ কথাই তুমি বলবে।

আর আমি বলবো, একদমই এমন মানুষকে ভালোবাসা যায় না। যে কিনা অন্যের ভালোবাসা একদমই বুঝে না, টের পায় না, মূল্যায়ন করে না।

আজ আর বিতর্ক নেই, তোমার সেই বোকা আজ আর বোকাও নেই। আজ একমত হওয়ার বিষয় হচ্ছে-

তুমি আমাকে প্রচন্ড ভালোবাসতে-আমারও উচিত ছিল তোমাকে ভালোবেসে যাওয়া। এখন সেই ভালোবাসার শোধ দিচ্ছি। আজ তুমি নেই কিন্তু দিনে দিনে তোমার প্রতি আমার প্রচুর ভালোবাসা জন্মেছে, বড্ড পাগলামিও বেড়েছে।

(ড. নজরুল ইসলাম খান, শিক্ষাবিদ, কবি ও কথাসাহিত্যিক)

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *